আমিরাতে দালাল চক্রের হাতে জিম্মি তিন বাংলাদেশি নারী উদ্ধার

প্রকাশিত: ১২:৫৮ অপরাহ্ণ, জুন ১৫, ২০২০

সংযুক্ত আরব আমিরাতে দালাল চক্রের হাতে জিম্মি তিন বাংলাদেশি নারীকে উদ্ধার করা হয়েছে। গোপনে ফোন পেয়ে দেশটির ফুজাইরা শহর থেকে তাদের উদ্ধার করে দুবাইয়ে অবস্থিতি কনস্যুলেটের কর্মকর্তারা।

আমিরাতে দালাল চক্রের হাত থেকে উদ্ধার হওয়া নারীরা হলেন- ময়না বেগম, আলিয়া আকতার ও মনি আকতার। বাংলাদেশ সমিতি ফুজাইরা ও চট্টগ্রাম প্রবাসী কল্যাণ পরিষদের নেতৃবৃন্দ কনস্যুলেট কর্মকর্তাদের সাথে উদ্ধার কাজে অংশ নেন।

উদ্ধার হওয়া নারীরা জানিয়েছেন, ৩ মাসের ড্যান্স ভিসা নিয়ে আজিম নামের এক দালালের মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে আরব আমিরাতে আসেন তারা। ওই দালাল প্রতি মাসে বাংলাদেশি ৫০ হাজার টাকা বেতনের প্রলোভন দেখিয়ে সে দেশে আনে তাদের।

এমনকি বিশ্বস্ততা অর্জনের জন্য অগ্রিম ৪০ হাজার টাকাও দেয় দালাল আজিম। এরপরে আমিরাতে আসার পর কথা মতো কাজ না দিয়ে নাজিম ও আলমগীর নামের আরো দুই সহযোগীসহ ওই নারীদের মারধোর করে অনৈতিক কাজে বাধ্য করেন। এসব কাজ করতে না পারলে ওই নারীদের হত্যারও  হুমকি দেয় দালাল চক্রটি।

বাধ্য হয়ে ওই নারীরা দুবাই কনস্যুলেটে গোপনে ফোন করে তাদের উদ্ধার করতে অনুরোধ করেন। পরে  কনস্যুলেটের কর্মকর্তারা তাদের উদ্ধার করেন। ওই নারীদের অভিযোগ, তিন মাসের কথা বলে আমিরাতে নিয়ে আসলেও সাত মাস পার হওয়ার পরও দালাল চক্রটি তাদেরকে দেশে যেতে দিচ্ছে না।

তারা আরো জানিয়েছেন, মিথ্যা কথা বলে প্রলোভন দেখিয়ে প্রতি মাসে শত শত মেয়েদের নিয়ে এসে তাদের জীবন ধ্বংস করে দিচ্ছে এ চক্রটি। তাই কোনো মেয়েকে এ ধরনের ভিসা নিয়ে আমিরাতে না আসার অনুরোধ করেন ভুক্তভোগী নারীরা। এর পাশাপাশি তাদেরকে দ্রুত দেশে পাঠাতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান ভুক্তভোগী এই নারীরা। সূএ : বাংলা

 

ভুলুয়া বাংলাদেশ/এমএএইচ