ব্যাংক ঋণ পরিশোধের সময় বাড়লো

ঋণ পরিশোধের সময় বাড়লো

প্রকাশিত: ৩:৫৭ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৫, ২০২১

করোনার (কোভিড-১৯) দ্বিতীয় ঢেউয়ের নেতিবাচক প্রভাব পড়তে শুরু করায় ঋণ কিস্তি পরিশোধ মেয়াদ বাড়িয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। কেন্দ্রীয় ব্যাংক জানায়, তলবি প্রকৃতির ঋণ এই বছরের মার্চ থেকে ২০২২ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে আটটি সমান ত্রৈমাসিক কিস্তিতে পরিশোধ করা যাবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক মো. নজরুল ইসলাম সাক্ষরিত এই সংক্রান্ত একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে। ব্যাংক আইনের ১৯৯১ এর ৪৫ ধারার প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এই নির্দেশনা দেওয়া হয়। সেখানে বলা হয়, করোনা ভাইরাসের প্রভাব মোকাবিলা এবং ব্যাংকিং গতিধারা ধীরে ধীরে স্বাভাবিক করার লক্ষ্যে চলমান ও তলবি প্রকৃতির ঋণ পরিশোধের জন্য এই নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

আরও বলা হয়েছে, তলবি ঋণের টাকা ত্রৈমাসিক ভিত্তিতে কিস্তিতে পরিশোধিত হলে ওই ঋণ বিরূপ মানে শ্রেণিকরণ করা যাবে না। এছাড়া চলমান ঋণের বকেয়া কিস্তি ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত পরিশোধ করা যাবে।

আর ২০২০ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ২০২০ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়ে আরোপিত সুদ ২০২২ সালের জুনের মধ্যে ছয়টি সমান ত্রৈমাসিক কিস্তিতে পরিশোধ করা যাবে। এছাড়া ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত আরোপিত সুদ ত্রৈমাসিক ভিত্তিতে নিয়মিতভাবে পরিশোধিত হলে গ্রাহকের নেওয়া ঋণ বা বিনিয়োগ ৩০ জুন পর্যন্ত মেয়াদোত্তীর্ণ হিসেবে বিবেচিত হবে না।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, বর্তমানে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের নেতিবাচক প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। বহির্বিশ্বেও নেতিবাচক প্রভাব বৃদ্ধি পাওয়ায় রপ্তানি বাণিজ্য কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এই কারণে বাংলাদেশ ব্যাংক এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তাই করোনা ভাইরাসের প্রভাব মোকাবিলা এবং ব্যাংকিং গতিধারা ধীরে ধীরে স্বাভাবিক করার লক্ষ্যে চলমান ও তলবি প্রকৃতির ঋণ পরিশোধের জন্য এই নির্দেশনা জারি করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এক্ষেত্রে বিভিন্ন প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় দেয়া ঋণ বা বিনিয়োগসমূহের জন্য এই বিজ্ঞপ্তির নির্দেশনা প্রযোজ্য হবে না।

 

 

ভুলুয়াবিডি/এএইচ

নিউজটি শেয়ার করুন।