এবার ওষুধ পণ্যে নজর অ্যামাজনের

প্রকাশিত: ৩:৩১ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৬, ২০২১

যুক্তরাষ্ট্রের বৃহত্তম ইন্টারনেট ভিত্তিক খুচরা বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান অ্যামাজন ফার্মেসি ব্যবসায় নেমেছেন। এতে যুক্তরাজ্যের ফার্মেসি ব্যবসায়ীরা বাজার হারানোর শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। খবর বিবিসি।

বিবিসির প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত বছরের নভেম্বরে অ্যামাজন যুক্তরাষ্ট্রে তাদের ফার্মেসির কার্যক্রম শুরু করেছে। কোম্পানিটি ভবিষ্যতে অন্যান্য দেশে তাদের এই সেবা চালুর করতে পারে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার শঙ্কা প্রকাশ করেছেন যুক্তরাজ্যের অনলাইন ফার্মেসি ব্যবসায়ীরা।

এ বিষয়ে অনলাইন ফার্মেসি কুইক মেডসের মালিক আহসান বাট্টি বলেন, অ্যামাজনের ফার্মেসি ব্যবসায় আসায় আমি ব্যাপক চিন্তিত। কারণ বাজারে এর ব্যাপক পড়বে। তাদের মার্কেটিং বাজেট আমাদের তাদের থেকে পিছিয়ে দিবে।

একই সঙ্গে তাদের কারণে বাজারে বিদ্যমান অনেক ফার্মেসিই বন্ধ হয়ে যাবে। এরই মধ্যে ওয়ালগ্রিন ও সিভিএসের মতো ফার্মেসি চেইনগুলোর শেয়ারমূল্য হ্রাস পাচ্ছে বলে জানা গেছে। এখনো অবশ্য অ্যামাজন অন্যান্য দেশের জন্য নিজেদের পরিকল্পনা ঘোষণা করেনি।

কিন্তু এদিকে যুক্তরাজ্যের কেমিস্টরা নিজেদের সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্দ্বীর কথা মাথায় রেখে প্রস্তুতি নিতে শুরু করে দিয়েছেন।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ কেট ম্যাকার্থি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে সিভিএস ও ওয়ালমার্ট ওষুধের দাম নিয়ে সবসময় আলোচনা করে। পাশাপাশি বাজারে তাদের উল্লেখযোগ্য পরিমাণে ক্ষমতাও রয়েছে। তারা কিছু ওষুধের ক্ষেত্রে একাধিপত্য সৃষ্টি করতে সক্ষম।ফলে তাদের কাছ থেকে না কিনলে ভোক্তাদের জন্য ওষুধের লাগাম পাওয়া কঠিন হয়ে দাঁড়ায়।

যদি অ্যামাজন এখন প্রবেশ করে, তবে বাকিদের একাধিপত্য বাধাপ্রাপ্ত হবে। কারণ অ্যামাজনের আরও বেশি অর্থ খরচ করার সামর্থ্য আছে।

অ্যামাজন ফার্মেসি স্রেফ কোনো প্রযুক্তি কোম্পানির বাজারে প্রবেশ নয়, বরং এটা পুরো স্বাস্থ্যসেবা শিল্পের দিকেই তীক্ষ্ন নজর রাখছে। বর্তমানের স্বাস্থ্যসেবা খাত অনেকটা প্রতিক্রিয়াশীল ব্যবস্থা। অসুখ হলো, চিকিৎসক আপনাকে ওষুধ দিল; তারপর ফার্মেসি থেকে ওষুধ কিনলেন।

কিন্তু অ্যামাজনের মাধ্যমে এ শিল্পে বৈপ্লবিক পরিবর্তন নিয়ে আসা যাবে। ওষুধ, নিউট্রিশন পণ্য, শরীরচর্চা সামগ্রী, ফুড সাপ্লিমেন্টসহ বৈচিত্র্যময় পণ্যের বাজার একই ছাতার নিচে নিয়ে আনতে সক্ষম অ্যামাজন।

 

 

ভুলুয়াবিডি/এএইচ

নিউজটি শেয়ার করুন।