এমভিপি তালিকায় সাকিব

এমভিপি তালিকায় সাকিব

প্রকাশিত: ৪:৫৭ অপরাহ্ণ, জুলাই ৫, ২০২০

২০০৬ সালের আগস্টে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক। সেই থেকে দীর্ঘ ১৪ বছর ধরে বাংলাদেশ ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় নির্ভরতার প্রতীক হয়ে আছেন সাকিব আল হাসান।

বাংলাদেশ ক্রিকেটের এই পোস্টার বয় টাইগারদের উপহার দিয়েছেন অনেক জয়। এমনকি হেরে যাওয়া ম্যাচেও লড়ে গেছেন। বিশ্বমঞ্চেও ছড়িয়েছেন আলো। প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে তিন ফরম্যাটের সেরা অলরাউন্ডার ছিলেন দীর্ঘ দিন।

বাংলাদেশ ক্রিকেটে দারুণভাবে অবদান রাখার জন্য সম্প্রতি বিখ্যাত ক্রিকেট মান্থলি ‘উইজডেন’-এর প্রকাশিত একবিংশ শতাব্দীর ওয়ানডের ‘মোস্ট ভ্যালুয়েবল প্লেয়ার (এমভিপি)’-এর তালিকায় দ্বিতীয় সেরা হিসেবে করে নিয়েছেন সাকিব। এমনকি টেস্টেও ‘মোস্ট ভ্যালুয়েবল প্লেয়ার’-এর তালিকায়ও জায়গা করে নেন তিনি।

এই ৩৩ বছর বয়সী ক্রিকেটার হোন ৬ষ্ঠ সেরা। উইজডেন ক্রিকেট থেকে এমন স্বীকৃতি পেয়ে উচ্ছ্বসিত সাকিবও। এই তালিকায় তাকে জায়গা করে দেওয়ার জন্য নিজের সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে উইজডেনকে ধন্যবাদও জানিয়েছেন তিনি।

সাকিব নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে এক বিবৃতি বলেন, ‘সেরা খেলোয়াড়দের একজন হিসেবে এই মর্যাদাপূর্ণ তালিকায় দেশের প্রতিনিধিত্ব করতে পেরে আমি অত্যন্ত আনন্দিত ও সম্মানিত বোধ করছি।

শতাব্দীর সবচেয়ে মূল্যবান ক্রিকেটারদের তালিকায় আমাকে ওয়ানডে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেটে ২য় এবং টেস্ট ক্রিকেটে ৬ষ্ঠ স্থানে নির্বাচিত করায় ক্রিকেটের বাইবেল খ্যাত ম্যাগাজিন উইজডেনকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।’

ক্রিকেটবিশ্বে ‘মিনোস’ থেকে সমীহ জাগানিয়া দল হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করতে সাকিবের অবদান ছিল অপরিসীম। ব্যাট ও বল হাতে দলকে সার্ভিস দিয়ে গেছেন এবং চলেছেন সমানতালে। ইতিমধ্যে ২০৬ ওয়ানডেতে ৬৩২৩ রান করার পাশাপাশি ২৬০ উইকেট শিকার করেছেন তিনি।

আর ৫৬ টেস্টে ৩৮৬২ রানের পাশাপাশি বাংলাদেশের রেকর্ড ২১০ উইকেটের মালিকও তিনি। বাংলাদেশের পক্ষে টি-টোয়েন্টিতেও সফল সাকিব ১৫৬৭ রান এবং ৯২ উইকেট নিলেও এই ফরম্যাটের এমভিপি তে জায়গা করে নিতে পারেননি তিনি।

 

ভুলুয়াবিডি/এএইচ

নিউজটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শেয়ার করুন।