এম এ হান্নানের তিনটি কবিতা

প্রকাশিত: ২:৪৬ পূর্বাহ্ণ, জুন ১৪, ২০২০

               কবিতা- এম এ হান্নান


মানুষ কাঁদছে মানুষ মরছে

মঞ্চায়নে মিষ্টিমধুর শব্দ কেনাবেচা করে নিজেকে পাশে থাকার অধিকারী ভাবছো? যে দামে মিছিল ছিল। সে দামের মূল্য নেই, জলের বিবরণ লিখতে
কখনো কাগজ কলম চাইনি।
অগণিত মানুষের চোখের জল শুকিয়ে গেছে, রাজাকারের মুখে উচ্চহাসি, শীতল বাতাস সুগন্ধি রুমে বসে নাক ডেকে ভ্রু উঁচিয়ে নায্যবাক্য? মাঠে এসে দ্যাখো
মানুষ কাঁদছে। মানুষ মরছে। লোক দেখানো চরিত্রায়ন বন্ধ করো। বন্ধ করো।


সর্বশক্তিমান বাঁচাও প্রাণ

চোখের পাতা ছুঁয়েছে বিশ্বাস নড়াচড়ায় জেগে উঠে প্রাণ মানুষ হয়ে জন্ম অস্থায়ীর বুকে আলো অন্ধকারে অসম্মান।

কে গাইবে গান? কে শুনবে বসে? হারানোর আর্তনাদে বিষণ্ন চারপাশ, সর্বশক্তিমান বাঁচাও নিরীহ প্রাণ মুক্ত বাতাসে সিক্ত হোক গৃহবাস।

হৃদয় থেকে হৃদয় অস্থীরময় চোখের পাতায় ছুঁয়ে বিশ্বাস নড়াচড়ায় কাঁদে আশাবাদী আত্মা ক্ষণেক্ষণে উপরে তাঁকিয়ে দীর্ঘশ্বাস।


মা-বাবার সেবায় কৃপণতা নয় (নিবন্ধ)

আমাদের রক্ত ক্রমান্বয়ে খুব বিষাক্ত হয়ে যাচ্ছে। মা বাবার প্রতি সমাজে প্রায় করা হচ্ছে নিষ্ঠুর আচরণ। যে নিষ্ঠুর আচরণের বাস্তবতা আমাদের লজ্জিত করে। এ লজ্জা থেকে আমাদের বের হয়ে আসতে হবে। আসা খুব খুব প্রয়োজন।

পরিবারের সবাই এক রকম হয় না। মা, বাবার দায়িত্ব একক ভাবে প্রায় সংসারে কেউ নিতে চায় না। তারা ভাবে যদি নিজের ধন সম্পাদ কমে যায়। আরে বোকার দল মা-বাবার জন্য ব্যয়কৃত অর্থ কমে না বাড়ে। যে সন্তানরা আর্থিকভাবে দুর্বল তারা মা-বাবাকে মন থেকে সেবা করবে।

তাই পরিবারের মধ্যে যে কোন একজনকে মা, বাবার দায়িত্ব নিতে হবে। এবং গুরুত্ব দিয়েই দেখতে হবে। অন্যরা পারলে দিবে। না পারলে নয়। সে সদস্যদের বেশী চাপ দেওয়া যাবে না। কেননা যে দিবে মন থেকেই দেওয়া উচিৎ।

মা, বাবার দায়িত্ব যে কোন একজন সন্তান নিবো। অন্যরা যাই করুক না কেন। একজনকে দৃঢ়ভাবে মা-বাবার সেবায় এগিয়ে আসতে হবে। আর তা হলেই মা,বাবা জন্য একটি নিরাপদ আশ্রয়স্থলের সৃষ্টি হবে। মা, বাবা চিন্তা মুক্ত হবেন। এবং মা, বাবাকে নিয়ে কেউকে ভাগাভাগি করতে হবে না।

আমরা দিন দিন বড় হচ্ছি। উনারা ছোট হচ্ছেন। তাই আমাদের যথাযথ দাঁয়িত্ব ও কর্তব্যে মন প্রাণ দিয়ে সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে নিয়ে যেতে হবে। মা, বাবার চোখে যেন কখনো আমাদের সেবার ত্রুটির কারণে জল না আসে সে দিকে বিশেষ ভাবে লক্ষ্য রাখতে হবে।

আমাদের রক্ত থেকে বিষ মুক্ত করে । আমাদের লাল রক্তে ভালোবাসা ছড়িয়ে দিবো মা,বাবার সেবায়। আমাদের মা, বাবারা আমাদের সেবা যত্নে হেসে -খেলে বেড়াক আমাদের হৃদয়ের আঙিনায়। মা খুব ভালোবাসি তোমাকে। বাবা খুব ভালোবাসি তোমাকে…..।