জয়ের পথেই এগিয়ে যাচ্ছি:বাইডেন

জয়ের পথেই এগিয়ে যাচ্ছি:বাইডেন

প্রকাশিত: ৫:০০ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৭, ২০২০

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী জো বাইডেন আবারও জয়ের আশা ব্যক্ত করে বলেছেন, জয় আমাদের হবেই। জয়ের পথেই আমরা এগিয়ে যাচ্ছি।

নিউইয়র্কের স্থানীয় সময় শুক্রবার রাত পৌনে ১১টায় এক ভাষণে বাইডেন বলেন,আমরা যুক্তরাষ্ট্রে এক নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করতে যাচ্ছি। এবার নির্বাচনে সর্বাধিক ভোট পেয়েছি। যা যুক্তরাষ্ট্রের ২৪৪ বছরের সব রেকর্ড ভেঙেছে।

বন্ধুরা, আমি শতভাগ আশাবাদী এই নির্বাচনে আমরা জয়ী হতে যাচ্ছি। এই বিজয় আমার একার না। এ বিজয় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জনগণের। এ বিজয় গণতন্ত্রের। আমরা জেতার পর কোনো নীল রাজ্য থাকবে না,কোনো লাল রাজ্য থাকবে না, শুধু থাকবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে আমেরিকান রাজনীতির বৈশিষ্ট্যযুক্ত ‘পক্ষপাতমূলক যুদ্ধ’ সমাপ্ত করতে হবে।

তিনি কথা বলার আগে ডেমোক্র্যাটিক মনোনীত ব্যক্তি জর্জিয়া এবং পেনসিলভেনিয়ার সমালোচনামূলক যুদ্ধক্ষেত্রের রাজ্যে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে এগিয়ে নিয়ে গিয়েছিলেন ও এখনও তিনি আরিজোনা এবং নেভাদায় নেতৃত্ব বজায় রেখেছেন।

ব্যাটলগ্রাউন্ডগুলোতে ক্রমাগত এগিয়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে জো বাইডেন বলেছেন, পরিষ্কার সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে এই লড়াইয়ে আমরা জিততে চলেছি। এখনও আমাদের বিজয় চূড়ান্তভাবে ঘোষণা করা হয়নি। কিন্তু ইলেকটোরাল কলেজ ভোট ও ভোট গণনা আমাদের বলছে সবকিছু পরিষ্কার।  পুরো জাতি আমাদের সঙ্গে আছে।

তিনি জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন এ খবর প্রকাশ হওয়ার পরই দৃশ্যপট পাল্টে যেতে থাকে। অনেকেই মনে করতে থাকেন তিনি বিজয় ঘোষণা করবেন। কিন্তু দীর্ঘ অভিজ্ঞতা সম্পন্ন এই রাজনীতিক মাথা ঠান্ডা রাখলেন। তিনি নিজের রাজ্য দেলাওয়ারের উইলমিংটন থেকে বললেন, আমরা এই লড়াইয়ে জিততে চলেছি।

গতকাল থেকে কি ঘটে চলেছে সেদিকে দৃষ্টি দিন। ২৪ ঘণ্টা  ধরে আমরা জর্জিয়াতে পিছিয়ে ছিলাম।  এখন এগিয়ে গেছি।  ওই রাজ্যে আমরা জয় পেতে চলেছি। ২৪ ঘণ্টা আগে আমরা পেনসিলভ্যানিয়াতেও পিছিয়ে ছিলাম।  এখন সেখানে জয় পেতে চলেছি। এখন আমরা এগিয়ে আছি। আমরা অ্যারিজোনা এবং নেভাদায়ও জয় পেতে চলেছি।

আসলে নেভাদায় আমাদের লিড এখন প্রায় দ্বিগুণ।  আমরা এখন তিন শতাধিক ইলেকটোরাল কলেজ ভোট পেতে চলেছি।  আমরা সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটে জয় পেতে চলেছি।  জাতি আমাদের সঙ্গে আছে।

বাইডেন বলেন, আমাদের রাজনীতির উদ্দেশ্য সম্পূর্ণ এবং নিরলস যুদ্ধ চালানো নয়। এটি সমস্যা সমাধান করা।  আমরা বিরোধী হতে পারি, তবে আমরা শত্রু  নই।  আমরা আমেরিকান। যদিও সংবাদ বিজ্ঞপ্তিগুলি এখনও বইডেনের লড়াইয়ের ডাক দেয়নি, তবে তিনি আত্মবিশ্বাস ব্যক্ত করেছিলেন যে শেষ পর্যন্ত তিনি বিজয়ী হবেন।

বাইডেন উল্লেখ করে বলেছেন, সংখ্যাগুলো আমাদের একটি পরিষ্কার দৃঢ় বিশ্বাসের গল্প বলে। আমরা এই দৌড় প্রতিযোগিতাটি জিততে যাচ্ছি। গত ২৪ ঘণ্টা ধরে জর্জিয়া এবং পেনসিলভেনিয়ায় তার ভোটের অংশটি উল্লেখযোগ্য পরিমাণে প্রসারিত হয়েছিল।  ইতিহাসের যেকোনো রাষ্ট্রপতি প্রার্থীর চেয়ে তিনি এখন পর্যন্ত ৭৪ মিলিয়নেরও বেশি ভোট জিতেছেন বলেও তিনি মন্তব্য করেছিলেন।

মিশিগান, উইসকনসিন এবং পেনসিলভেনিয়ায় তার নেতৃত্বের অগ্রগতি প্রসারিত হওয়ায় গর্বিত উল্লেখ করে বলেন, যে বিষয়গুলোর জন্য আমি বিশেষভাবে গর্বিত তা হলো, যেসব অঙ্গরাজ্যে ২০১৬ সালে  ট্রাম্পকে ভোট দিয়েছিল। আমরা পুনর্নির্মাণ করেছি।  মাত্র চার বছর আগে দেশের মাঝখানে নীল দেয়াল ভেঙে গেছে।

বেশ কয়েকটি রাজ্যে ভোট গণনা ধীরে ধীরে এগিয়ে যাওয়ায় বাইডেন ধৈর্য্যের আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি স্পষ্টভাবে রাষ্ট্রপতির বিরুদ্ধে পিছনে ঠেললেন, যিনি আইনি ভোট গণনা প্রক্রিয়া সমালোচনা করেছেন। ট্রাম্পের প্রচারাভিযান এখনও পর্যন্ত বেশ কয়েকটি রাজ্যে মামলা করে মোকাবিলা করতে ব্যর্থ হয়েছেন।  যেখানে তারা বলেছেন যে ভোট বিতর্কিত।

বাইডেন বলেছিলেন, গণতন্ত্র কাজ করে।  আপনার ভোট গণনা করা হবে। মানুষ কতটা কঠোর। চেষ্টা করে ভোট গণনা বন্ধ করতে চায়।  আমি এটি হতে দেব না।

বাইডেন নির্বাচিত হলে তার প্রতিশ্রুতি পূরণকে অগ্রাধিকার দেবেন, যেমন- আমেরিকান ভোটারদের কোভিড মেকাবিলা, অর্থনীতি, জলবায়ু পরিবর্তন, পদ্ধতিগত বর্ণবাদ সম্পর্কে ব্যবস্থা নেওয়ার আদেশ অব্যাহত থাকবে।

বাইডেন বলেন, ‘আমি জনগণকে জানতে চাই, আমরা কাজটি শেষ করতে অপেক্ষা করছি না’।

তিনি বলেন, উপ-রাষ্ট্রপতির মনোনীত প্রার্থী কমলা হ্যারিস গতকাল জনস্বাস্থ্য এবং অর্থনৈতিক বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন।

বাইডেন জানান, তিনি যদি রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন, করোনভাইরাস মহামারি মোকাবিলায় কাজ চালিয়ে যাবেন।

‘আমরা চাই যে সবার আগে আমরা এই ভাইরাসটি নিয়ন্ত্রণের জন্য আমাদের পরিকল্পনাটি কার্যকর করতে যাচ্ছি। আমরা হারিয়ে যাওয়া যেকোনও জীবন বাঁচাতে পারি না, তবে সামনের মাসগুলিতে আমরা প্রচুর জীবন বাঁচাতে পারি।  তিনি এর আগে জাতীয় টেস্টিং পদ্ধতি ও সার্বজনীন ম্যান্ডেটের জন্য জনগণের মধ্যে স্বাস্থ্যসেবার প্রয়োজন বলে উল্লেখ করেন।

শুক্রবার বাইডেনের এই বক্তব্য প্রচারের পরে প্রাথমিক ধারণা তৈরি করে, এই পরিকল্পনাটি তিনি আগেই তৈরি করেছিলেন। তিনি ২৭০টিরও বেশি ইলেক্টোরাল ভোটে বিজয়ী হবেন বলে অনুমান করেন।  বাইডেন বর্তমানে ২৫৩টি ইলেক্টোরাল ভোট পেয়ে এগিয়ে রয়েছেন।

বাইডেন যদি পেনসিলভেনিয়ায় জয়ী হন, যার ২০ টি ইলেক্টোরাল ভোট রয়েছে।এটা যোগ হলে তার ইলেক্টোরাল ভোটের সংখ্যা দাঁড়াবে ২৭৩টি। তবে জর্জিয়ার ১৬টি ইলেক্টোরাল ভোট রয়েছে এটি তার খাতায় যোগ হলে মোট ২৮৯- এ পৌঁছে যাবে। তবে বাইডেন অ্যারিজোনা এবং নেভাদায়ো জয়ী হতে পারেন বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা ধারণা করছেন। সূএ: দ্য গার্ডিয়ান

 

ভুলুয়াবিডি/এএইচ

নিউজটি শেয়ার করুন।