নদী মার্তৃক দেশকে শোনার বাংলা গড়ার ঐক্যবদ্ধ থাকার আহবান

নদী মার্তৃক দেশকে শোনার বাংলা গড়ার জন্য ঐক্যবদ্ধ থাকার আহবান

প্রকাশিত: ১০:১১ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১২, ২০২০

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি: নদী মার্তৃক এই দেশকে শোনার বাংলা গড়ার জন্য শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ থাকা আহবান জানান নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। তিনি বলেন, শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে বিশ্বদরবারে মর্যাদার জায়গায় নিয়ে গেছেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদের আলোকবর্তিকা। তাঁর আলোয় আলোকিত হচ্ছে দেশ। তিনি পদ্মা সেতু, রুপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্র বন্দর, চার লেন-ছয় লেনের মহাসড়ক, মেট্রোরেল, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ করছেন।

শনিবার (১২ ডিসেম্বর) দুপুরে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার মজুচৌধুরীরহাট বাস টার্মিনালে বাংলাদেশ অর্ভন্ততরীন নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) এর আয়োজনে সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তবে এসব কথা বলেন।

বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর গোলাম সাদেকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্য মধ্যে বক্তব্য রাখেন-

সাবেক মন্ত্রী ও লক্ষ্মীপুর-৩ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য এ কে এম শাহজাহান কামাল, জেলা প্রশাসক অঞ্জন চন্দ্র পাল, পুলিশ সুপার ড. এ এইচ এম কামরুজ্জামান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মিয়া মোহাম্মদ গোলাম ফারুক পিংকু এবং সাধারণ সম্পাক এডভোকেট নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন ,স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা আবু ইউছুফ ছৈয়াল।

প্রতিমন্ত্রী এসময় ঢাকা-লক্ষীপুর নৌপথের প্রায় ৫০ কোটি টাকা ব্যায়ে মজুচৌধুরীরহাট সংলগ্ন চররমণী এলাকার মেঘনা নদীল ২৫ কিলোমিটার নৌপথের খনন কাজের উদ্ভোধন করেন। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ নৌবাহিনীর প্রতিষ্ঠান খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেড ও বিআইডব্লিউটিএ’র নিজস্ব ড্রেজার দিয়ে খনন এ প্রকল্প শেষ করতে আগামী দুই বছর সময় নির্ধারণ করা হয়।

এর ফলে লক্ষ্মীপুর- ভোলা এবং ঢাকা-লক্ষ্মীপুর উভয় নৌপথের দুরত্ব প্রায় ১০ কিলোমিটার কমবে। ঢাকা হতে লক্ষ্মীপুরে যাত্রীবাহী ল ৬ ঘন্টায় যেতে পারবে।

উল্লেখ্য, বুড়িগঙ্গা, ধলেশ্বরী এবং মেঘনা নদীর লোয়ার অংশের দিয়ে ঢাকা হতে লক্ষ্মীপুর পর্যন্ত নৌপথের দুরত্ব ১২৫ কিলোমিটার। বুড়িগঙ্গা ও ধলেশ্বরী নদীতে বর্তমানে কোন নাব্যতা সংকট নেই। মেঘনার নদী লোয়ার অংশে লক্ষ্মীপুরের মজুচৌধুরীরহাট সংলগ্ন এলাকায় কিছু স্থানে নাব্যতা সংকট রয়েছে।বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) মেঘনা (লোয়ার) নদীর উক্ত চ্যানেলে ২৫ কিলোমিটার নৌপথ খনন করবে।

এ বছরের ডিসেম্বরে শুরু হয়ে ২০২২ সালের ডিসেম্বরে এ খনন কাজ শেষ হবে। দু’বছরে ৩১ লক্ষ ঘনমিটার খনন কাজে ব্যয় হবে প্রায় ৫০ কোটি টাকা। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ নৌবাহিনীর প্রতিষ্ঠান খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেড এবং বিআইডব্লিউটিএ’র নিজস্ব ড্রেজার দিয়ে খনন কাজ সম্পন্ন করা হবে।

 

ভুলুয়াবিডি/এএইচ

নিউজটি শেয়ার করুন।