লক্ষ্মীপুরে নৌ-পুলিশের ওপর হামলা, আটক ১

প্রকাশিত: ৭:০০ অপরাহ্ণ, মে ৩১, ২০২০

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার মেঘনা নদীর বুড়ির ঘাট এলাকায় নৌ-পুলিশের অভিযানে হামলা চালিয়েছে জেলে ও মৎস্য আড়ৎদাররা। এতে পুলিশের এক এসআইসহ তিন পুলিশ আহত হয়েছেন।

এ ঘটনায় নৌ-পুলিশ আত্মরক্ষার্থে ৫ রাউন্ড ফাঁকাগুলি করে। ঘটনাস্থল থেকে হামলাকারী মনির হোসেনকে আটক করেছে পুলিশ। আটকৃত মনির (১৯) কমলনগর উপজেলা হাসন আলী মাঝির ছেলে।

পুলিশ জানান, রোববার (৩১ মে) বিকালে নৌ-পুলিশের এসআই মেহেদী হাসান ১ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন।

ওই মামলায় নৌ-পুলিশের আটককৃত জেলে মনির হোসেন (১৯)’কে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। এরআগে গত শনিবার সন্ধ্যার পরে সদর উপজেলার মেঘনা নদীর বুড়ির ঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

লক্ষ্মীপুর মজুচৌধুরীরহাট ঘাটের নৌ-পুলিশের ইনচার্জ অচিন্ত কুমার দে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে জেলেরা প্রকাশ্যে মেঘনা নদীতে খুঁটি জাল দিয়ে অন্যান্য মাছ মেরে চিংড়ি রেণু ধরছিলো।

এ সময় তারা অভিযান চালিয়ে খুঁটি জাল তুলে নিয়ে আসার সময় বুড়ির ঘাট এলাকায় পৌঁছলে কয়েকজন মৎস্য আড়ৎদার ও জেলেরা তাদের লক্ষ্য করে হামলা চালায়। এ সময় তিনিসহ নৌ-পুলিশ সদস্য রুবেল, আবু তাহেরসহ তিন জন আহত হন।

পরে তারা আত্মরক্ষার্থে ৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়েন। ওই ঘটনাস্থল থেকে হামলাকারী জেলে মনির হোসেন (১৯)’কে আটক করে থানায় আসা হয়। আহত নৌ-পুলিশদের সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, প্রতিবছর এ সময়ে মেঘনায় খঁটি জাল এবং বাধঁদিয়ে প্রভাবশালী একটি চক্র জেলেদের ব্যবহার করে চিংড়ি রেনু সংগ্রহ করে আসছিলো।

এ বছর তারা আবার শুরু করলে নৌ-পুলিশ খবর পেয়ে তাদের খুঁটি জাল তুলে নিয়ে আসার সময় জেলেসহ মৎস্য আড়ৎদাররা একত্রিত হয়ে বুড়ির ঘাট এলাকায় জড়ো হয়ে নৌ-পুলিশের ওপর হামলা চালায় এবং খুঁটি জাল ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে।

এ সময় পুলিশ আত্মরক্ষার্থে গুলি ছুড়লে তারা পিছু হটেন হামলাকারীরা। ওই সময় ঘটনাস্থল থেকে জেলে মনির হোসেন (১৯) কে আটক করে নৌ-পুলিশ।

এদিকে নৌ-পুলিশের ওপর হামলা-মামলার ঘটনায় জেলে পরিবারের মধ্যে আতংক দেখা দিয়েছে। ঘটনার পর থেকে অনেক জেলে ও আড়ৎদার পলাতক রয়েছে।

সদর থানার ওসি এ কে এম আজিজুল জানান, নদীতে নৌ-পুলিশের ওপর হামলাসহ মারধরের ঘটনায় সদর থানায় মামলা হয়েছে। ওই মামলায় একজনকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। বাকী আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত থাকবে।

ভুলুয়া বাংলাদেশ/এএইচ