পাপুল নিজেকে নির্দোষ দাবি করলেন

প্রকাশিত: ৪:২০ অপরাহ্ণ, জুলাই ২, ২০২০

মানবপাচার, অর্থপাচার ও ঘুষ দেয়ার অভিযোগ কুয়েতে আটক থাকা বাংলাদেশি এমপি মোহাম্মদ শহিদ ইসলাম পাপুল দেশটির সরকারি কৌঁসুলির তদন্তের সময় নিজেকে নির্দোষ বলে দাবি করেছেন। এসময় তিনি সব দায় কুয়েতি কর্মকর্তাদের ওপরও চাপান। খবর আরব টাইমসের।

তদন্তের সময় ঘুষ দেয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন পাপুল। তিনি বলেন, কুয়েতে আমি ৯ হাজার কর্মী এনেছি এবং শতভাগ বৈধ টেন্ডারের মাধ্যমে।

কেউ আমার বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ করেনি। বরং কিছু কর্মকর্তা আমার টেন্ডার বন্ধ করে দেয়। এগুলো পাস করার জন্য আমি তাদের টাকা দিয়েছে। এমন পরিস্থিতি আমি আর কীইবা করতে পারতাম?

সূত্রগুলো জানিয়েছে বাংলাদেশি এই এমপি বলেছেন, তার কোম্পানিতে যে ধরনের ইকুইপমেন্ট আছে সেটি আর কোনও কোম্পানির কাছে নেই। তিনি গুণগতমান সম্পন্ন সেবা দিয়েছেন। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে কুয়েতের কিছু কর্মকর্তা।

সূত্র জানিয়েছে, এই মামলা সময় মতো ক্রিমিনাল আদালতে স্থানান্তর করা হবে। তারা বলছে, বিভিন্ন নাম, ব্যক্তি এবং অভিযোগের গুরুত্বের কারণে এই মামলায় সময় প্রয়োজন। যাতে করে সম্পৃক্ত কর্মকর্তা বা নাগরিকদের জবাবদিহিতার আওতায় আনা যায়।

মানবপাচার ও অর্থপাচারের অভিযোগে গত ৭ জুন এমপি পাপুলকে গ্রেফতার করে কুয়েতের কর্তৃপক্ষ। এরপর তার বিরুদ্ধে কুয়েতি কর্মকর্তাদের ঘুষ দেয়ার অভিযোগও আনা হয়।

পরে কুয়েতি কর্তৃপক্ষ তদন্ত চালিয়ে দেখতে পায় যে, পাপুল তার কুয়েতি কোম্পানির মাধ্যমে ২০ হাজারের বেশি বাংলাদেশিকে দেশটিতে নিয়ে গেছেন। তিনি তাদের কাছ থেকে দৈনিক ‘সার্ভিস চার্জ’ নিতেন বলেও তদন্তে উঠে এসেছে।

 

ভুলুয়াবিডি/এএইচ