উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. রাসেল

বাগেরহাটে ৪’শ কেভি ট্রান্সমিশন লাইনের কাজে দুর্নীতির অভিযোগ

প্রকাশিত: ৮:২২ অপরাহ্ণ, জুলাই ৪, ২০২০

সাগর মল্লিক বাগেরহাট প্রতিনিধি: বাগেরহাট’র ফকিরহাটে ৪’শ কেভি ট্রান্সমিশন লাইনের কাজে ব্যাপক দুর্নীতির তথ্য পাওয়া গেছে।পাওয়ার গ্রীড কোম্পানী অব বাংলাদেশ লিঃ আওতাধীন আমিন বাজার, মাওয়া, গোপালগঞ্জ, মোংলা ৪’শ কেভি ট্রান্সমিশন লাইনের কাজে দুর্নীতির তথ্য পাওয়া গেছে।

দেখা গেছে, টাওয়ার পাইলিং এ বিভিন্ন রকম দৈর্ঘের পাইলিং করেই সটকে পড়ার পায়তারা চালিয়ে যাচ্ছে।কাজের সিডিউল অনুযায়ী পাইলিং এ ২৮ মিঃ / ৩০ মিঃ দৈর্ঘ্য দেওয়া থাকলেও মাত্র কাজ করা হচ্ছে ১৬ মিঃ।

কোথাও কোথাও দেখা গেছে, মাত্র ১২ মিঃ দৈর্ঘ্য দিয়ে কাজ শেষ করছে। সরেজমিনে গিয়ে কেপিটিএল এর সাইট ইঞ্জিনিয়ার প্রান্ত-কে সিডিউলের দেয়া দৈর্ঘের কম দৈর্ঘ্য দিয়ে কাজ করার কারণ জানতে চাইলে বলেন, রাসেল স্যার এর নির্দেশেই ১৮ মিঃ দৈর্ঘ্য দিয়ে কাজ করছি।

মো. রাসেল পাওয়ার গ্রীড কোম্পানী অব বাংলাদেশের উপ-সহকারী প্রকৌশলী। তিনি খুব কম আসতেন সাইটে।সাইট ইঞ্জিনিয়ার, ওয়ার্কার ও স্থানীয়দের বরাতে জানা যায়,উপ-সহকারী প্রকৌশলী মোঃ রাসেল -কে খুব কমই দেখা যায় সাইটে।এব্যাপারে মোঃ রাসেল এর সাথে কথা হলে তিনি অস্বীকার করেন।

এভাবেই সিডিউলে উল্লেখিত দৈর্ঘ্য না দিয়েই কাজ করর স্টকে যাচ্ছেন তারা।এমতাবস্থায় এসকল দূর্নিতীগ্রস্থ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা গ্রহণ না করলে হুমকির মুখে পড়বে দেশের পাওয়ার গ্রীড সেকশন।

 

ভুলুয়াবিডি/এএইচ

নিউজটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শেয়ার করুন।