বিআরটিএ-কে সতর্ক করলো সেতুমন্ত্রী

বিআরটিএ-কে সতর্ক করলেন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত: ৪:১৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ৩১, ২০২০

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) রংপুর অফিসকে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। সংশোধন না হলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও সতর্ক করেছেন মন্ত্রী।

আজ শুক্রবার (৩১ জুলাই) দুপুরে রংপুর সড়ক জোন, বিআরটিসি ও বিআরটিএ’র কর্মকর্তাদের সঙ্গে শেষ মুহূর্তের ঈদ প্রস্ততি বিষয়ক এক মতবিনিময় সভায় এই কথা বলেন তিনি। তিনি তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে মতবিনিময় সভায় যুক্ত হন।

মন্ত্রী বলেন, রংপুর বিআরটিএ’তে অনিয়মের বিষয়ে কিছু কিছু পত্রিকায় রিপোর্ট হয়েছে। আমার কাছে অভিযোগ রয়েছে, বাইরের দালাল এবং বিআরটিএ’র কারো কারো সহযোগিতায় একটি চক্র গড়ে উঠেছে।

এ চক্র ভাঙতে হবে।  বিআরটিএর সেবার মান বাড়াতে হবে।  আমি সবাইকে সতর্ক করছি, সংশোধন না হলে অনিয়ম বন্ধে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

সরকার বিআরটিসিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপ দিতে বহরে এক হাজার বাস যুক্ত করেছে জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ৫শ শতাধিক ট্রাক যুক্ত হয়েছে। তবুও প্রতিষ্ঠানটি এখনও লোকসানের আবর্তে আবর্তিত হচ্ছে।

এখনও মাঝে মধ্যে ভর্তুকি দিতে হচ্ছে। অনিয়মের দুষ্ট চক্র এ প্রতিষ্ঠানকে পেয়ে বসেছে। আমি রংপুর অঞ্চলের সবাইকে সতর্ক করে বলছি, সেবা দেয়ার মান বাড়াবেন। অনিয়মের সব রন্ধ বন্ধ করুন।  কোনো সমস্যা দেখা দিলে প্রশাসন আছে, মন্ত্রণায়লয় আছে, আমি নিজেও আছি।

সরকারি কর্মকর্তাদের সরকার এ দুর্যোগকালে কর্মস্থলে থাকার নির্দেশনা দিয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আপনারা নিজ নিজ কর্মস্থলে উপস্থিত থেকে যার যার দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করবেন। এবারের ঈদযাত্রা ভিন্ন বাস্তবতায়, একদিকে করোনা সংক্রমণ অন্যদিকে বন্যা।

দেশের এক তৃতীয়াংশ এলাকা বন্যার পানিতে প্লাবিত।  শুরুটা উত্তরাঞ্চলে হলেও এখন মধ্যাঞ্চলে ও দক্ষিণাঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে।  উত্তরাঞ্চলের অনেক সড়কে পানি প্লাবিত করলেও সড়ক যোগাযোগ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই বিচ্ছিন্ন হয়নি। পানি নেমে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সড়ক সংষ্কার কাজ শুরু করতে হবে।

রংপুর এলাকার সড়ক অবকাঠামো উন্নয়নকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, কয়েকটি সড়ক চারলেনে উন্নতি করার প্রাথমিক প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। মহাসড়ক সার্বক্ষণিক পাসঅ্যাবল-ইউজেবল করতে হবে। গর্ত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মেরামত করতে হবে। কাজে কোনো শৈথিল্য দেখানো যাবে না। প্রয়োজনে ঈদের দিনেও কাজ করতে হবে।

এ সময় কাজের গুণগত মান বজায় রাখার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, সড়কে নিম্ন মানের কাজের জন্য এখন থেকে ঠিকারদারদের পাশপাশি প্রকৌশলীদেরও দায়বদ্ধতার মধ্যে থাকতে হবে। জনগণের কষ্টার্জিত অর্থের সর্বোচ্চ ব্যবহারে প্রত্যাশা কোনো রূপ অপচয় করা যাবে না, নিম্নমান মেনে নেওয়া হবে না।

গত কয়েকবছরে ঈদে ফিরতি যাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনা বেড়ে যাওয়ার বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দিয়ে সবাইকে সচেতন এবং মহাসড়কে নজরদারি বাড়ানোর নির্দেশ দেন তিনি।

পদ্মায় পানির প্রবাহ বেশি হওয়ায় ফেরি চলাচল বিঘ্ন ঘটায় সেতুমন্ত্রী বলেছেন, এতে যানবাহনগুলোকে অনেকক্ষণ অপেক্ষা করতে হচ্ছে। এ ছাড়া সারাদেশে যান চলাচলের মেজর কোনো সমস্যা হচ্ছে না। দু’একটি এলাকায় গাড়ির চাপ লক্ষ্য করা গেছে।তবে মহাসড়কে দীর্ঘ অপেক্ষা করতে হচ্ছে না।  কিছু কিছু জায়গায় ধীর গতিতে চলছে। দীর্ঘ যানজটের কোনো কারণ সৃষ্টি হয়নি।

শোকের মাস আগস্টে এলে এক ধরনের মৌসুমি চাঁদাবাজ বেড়ে যায় মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, শোকের মাসকে ঘিরে চাঁদাবাজ বন্ধে শেখ হাসিনার সরকার স্পষ্টতই কঠোর অবস্থানে।  বঙ্গবন্ধুর নামে কাউকে অনিয়ম করতে দেওয়া হবে না।

এ সময় ঘরমুখো যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে মাস্ক পরার আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের তিনি বলেন, ঈদের ছুটিতে নমুনা পরীক্ষা অব্যাহত থাকবে।  ডাক বিভাগের অ্যাপ ‘নগদ’ ব্যবহার করেও রেজিস্ট্রেশন করে নমুনা দিতে পারবেন যে কেউ।

ভুলুয়াবিডি/এএইচ

নিউজটি শেয়ার করুন।