বিলুপ্তির পথে ঐতিহ্যের ধানের গোলা

প্রকাশিত: ২:১০ পূর্বাহ্ণ, জুন ৭, ২০২০
কৃষকের ঐতিহ্য ধানের গোলা

বিলুপ্তির পথে কৃষকের ঐতিহ্যের প্রতীক ধানের গোলা। একটু জুতওয়ালা কৃষকও এখন আর গরু পালতে চান না। পুকুর থাকলে তা মাটি ভরাট করে নির্মাণ করা হচ্ছে বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এখন শহর চলে গেছে গ্রামে।

অধিকাংশগ্রামে গড়ে উঠেছে বাজার ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। গোলাভর্তি ধান, গোয়ালভরা গরু, পুকুরভরা মাছ এই ছিল আবহমান বাংলার কাব্যিক অভিব্যক্তি। জনশ্রুতি রয়েছে, এক সময় সমাজের নেতৃত্ব নির্ভর করত এই ধানের গোলার ওপর হিসাব কষে। এসব এখন শুধুই কল্পকাহিনী।

এ বিষয়ে মিরাপুর গ্রামের প্রবীন ব্যক্তি কাজী আফছার বলেন, গোলায় অল্প জায়গায় অনেক ধান রাখা যায়। তাতে ধান শুকিয়ে রেখে দিলে অনেক দিন ভালো থাকে। তবে সেই ঐতিহ্য হারিয়েও কারোর আফসোস করতে দেখা যায় না। বরং ছেলে-বউ কিংবা মেয়ে-জামাই চাকুরি করে বলতেই বেশি সম্মানবোধ করেন গ্রামের সেই কৃষক।

শফিকুল ইসলাম বাবু বলেন, আগে আমাদের বাপ-দাদাদের কাছে শুনেছি, বর্ষার সময়ে কৃষকরা ধান মাড়াই করে গোলায় কিংবা বড় আকারের মাটির তৈরি পাত্রে রাখা হতো ধান। তা শুকনো মৌসুমে বের করে শুকিয়ে বাজারজাতসহ নিজেদের জন্য রাখা হতো। এখন আর এগুলো দেখা যায় না। কালের বিবর্তনে তা হারিয়ে যাচ্ছে।

কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ কেএম কাউছার হোসেন বলেন, আগে চেয়ে কৃষকদের আবাদি ও বসবাসের জমি কমে যাওয়া, গোলা তৈরিতে জায়গা বেশি লাগা, গোলাকে বায়ুরোধী রাখতে না পারার জন্য পোকা ও রোগের আক্রমণের সম্ভনা দেখা দেয়া ধানের গোলা এখন গুদাম ঘরে পরিণত হয়েছে।

উপজেলার সচেতনমহল মনে করেন, আধুনিকতার ছোঁয়ায় ছুয়েছে কৃষক ও কৃষকের পরিবারকেও। হয়তো চাকচিক্য ও বিলাসী জীবন তাদের ভুলিয়ে দিয়েছে ঐতিহ্যের কথা।