ফাইল: ছবি

যশোরে প্রবাসীর স্ত্রী অপহরণের ঘটনায় আটক-৩

প্রকাশিত: ১০:৩৫ অপরাহ্ণ, জুন ২৬, ২০২০

এসএম স্বপন (যশোর) অফিস: যশোরে ফেসবুকে পরিচয়ে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে দুই সন্তানের জননী রিমা খাতুন (২৪) নামে এক প্রবাসীর স্ত্রী অপহরণের শিকার হয়েছে। আর এ ঘটনায় তিন অপহরণকারীকে গ্রেফতার করে ওই গৃহবধূকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (২৫ জুন) ভোরে তাকে উদ্ধার করে যশোর ডিবি পুলিশের একটি চৌকশ টিম।

রিমা যশোর মনিরামপুর থানাধীন মহাদেবপুর এলাকার প্রবাসী হাফিজুর রহমান গাজীর স্ত্রী। তাদের এক মেয়ে ও এক ছেলে সন্তান রয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা হলো- বগুড়া জেলার ধনুট থানার ধামাচামা গ্রামের শাহ আলমের ছেলে জুয়েল আহম্মেদ এবং তার দুই সহযোগী আলমগীর হোসেন ও মামুন-উর-রশিদ।

সূত্রে জানা যায়, ফেসবুকের মাধ্যমে রিমা খাতুনের পরিচয় হয় মালয়েশিয়া প্রবাসী সোহেল রানার সাথে। সোহেল রানা বগুড়া জেলার ধনুট থানাধীন ধামাচামা গ্রামের শাহ আলম এর ছেলে। সোহেল দীর্ঘ দিন ধরে মালয়েশিয়া থাকে।

এদিকে গত সোমবার (০১ জুন) রিমা খাতুন নিখোঁজ হলে রিমার শ্বশুর বাড়ির লোকজন মনিরামপুর থানায় বুধবার (১০ জুন) একটি নিখোঁজ জিডি করেন। জিডি নং-৩৬৬।

রিমার পরিবার জানতে পারেন রিমাকে প্রবাসী সোহেল রানার নির্দেশে তার আপন ছোট ভাই জুয়েল আহম্মেদ ও তার কয়েকজন সহযোগি মিলে মাইক্রোবাসে এসে যশোর মনিরামপুর থানার মহাদেবপুর থেকে রিমাকে নগদ ৩৬ লক্ষ টাকা ও ১২ ভরি স্বর্ণালংকারসহ অপহরণ করে নিয়ে অজ্ঞাত স্থানে আটক করে রেখেছে।

এমন ঘটনায় রিমা নিখোঁজের পরিবার মনিরামপুর থানায় বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) তারিখে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং-১১।

এদিকে যশোর জেলা পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আশরাফ হোসেন পিপিএম জানান, মামলাটি চাঞ্চল্যকর হওয়ায় মামলাটির তদন্তভার ডিবি পুলিশকে দেয়া হয়। এ সময় মামলাটির তদন্তভার পুলিশ পরিদর্শক সোমেন দাশ গ্রহণ করেন। পরে তিনি তথ্য ও প্রযুক্তির ব্যবহার করে আসামী এবং ভিকটিমের অবস্থান শনাক্ত করেন।

এরই সূএ ধরে বৃহস্পতিবার (২৫ জুন) ভোর সাড়ে ৫ টার দিকে জেলা গোয়েন্দা শাখার অফিসার ইনচার্জ মারুফ আহম্মদের সার্বিক তত্বাবধায়নে পুলিশ পরিদর্শক সোমেন দাশের নেতৃত্বে ডিবি’র একটি চৌকশ টিম বগুড়া জেলার ধনুট থানাধীন ধামাচামা নামক স্থানে অভিযান চালিয়ে অপহৃত ভিকটিম রিমাকে উদ্ধার।

এ সময় আসামী জুয়েল আহম্মেদ, আলমগীর হোসেন’সহ মামুন উর-রশিদকে গ্রেফতার করে নগদ ১৬ লাখ টাকা ও ২ ভরি স্বর্ণালংকার উদ্ধার করে।

উল্লেখ্য; প্রাথমিক তদন্তে ফেসবুকে পরিচয় হয়ে ভিকটিম রিমার ছবি নিয়ে বিকৃত করে তার প্রবাসী স্বামী হাফিজুর এবং তার পরিবারের কাছে বিকৃত ছবি প্রকাশের ভয়ভীতি দেখিয়ে গত ১ মে ৩ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়।

পরে সোহেলের ভাই জুয়েল এবং অন্যান্য সহযোগীদের সহযোগীতায় রিমাকে ৩৬ লক্ষ টাকা ও স্বর্ণালংকার’সহ অপহরণ করে নিয়ে অজ্ঞাত স্থানে আটক রাখে বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

 

ভুলুয়াবিডি/এএইচ