রাজশাহী ‘আরসিআরইউ’ আয়োজনে মানববন্ধন অনুষ্ঠীত

প্রকাশিত: ৮:৪৭ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২২, ২০২১

মুক্তার হোসেন রাজশাহী (দুর্গাপুর) প্রতিনিধি: কুমিল্লায় কোরআন অবমাননার ঘটনাকে কেন্দ্র করে যখন দেশের বিভিন্ন স্থানে সংঘটিত সাম্প্রদায়িক সহিংসতার প্রতিবাদে রাজশাহী কলেজ রিপোর্টার্স ইউনিটির (আরসিআরইউ) আয়োজনে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রাজশাহী কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহা. আব্দুল খালেক এর সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন- আরইউজের সভাপতি ও দৈনিক কালের কণ্ঠের ব্যুরো প্রধান রফিকুল ইসলাম, আরইউজের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক যুগান্তর স্টাফ রিপোর্টার তানজিমুল হক, রাজশাহী টেলিভিশন জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের (আরটিজেএ) সভাপতি মোহনা টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার মেহেদী হাসান শ্যামল।

আরও বক্তব্য রাখেন- দৈনিক সোনালী সংবাদের স্টাফ রিপোর্টার বীর মুক্তিযোদ্ধা তৈয়বুর রহমান, আরইউজের সদস্য সিনিয়র ফটো সাংবাদিক সেলিম জাহাঙ্গীর, রাজশাহী মহানগর হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শ্যামল কুমার ঘোষ, মুক্তিযুদ্ধের তথ্য সংগ্রাহক ওলিউর রহমান বাবু ও আরসিআরইউ এর সাবেক সভাপতি বাবর মাহমুদ, রাজশাহী কলেজ ছাত্রলীগ এর সাধারণ সম্পাদক নাইমুল হাসান নাইম।

বাঙ্গালি জাতির অসাম্প্রদায়িকতার ইতিহাস সারা বিশ্বে রোল মডেল। এখানে হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টানসহ সকল ধর্ম বর্ণের মানুষ সম্প্রীতির বন্ধনে আবদ্ধ। কিন্তু মাঝে মাঝে কিছু কুচক্রী মহল এই সম্প্রীতি বিনষ্টের অপচেষ্টা চালায়। যেটা এদেশের প্রগতিশীল সমাজ, সাংবাদিক সমাজ ও সাধারণ মানুষ মেনে নেয়নি, আগামীতেও কখনো মেনে নেবে না।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন,বাংলাদেশের হিন্দু মুসলিম বৌদ্ধ খ্রিস্টানসহ সব ধর্মের মানুষ শান্তিপূর্ণভাবে বসবাসের যে ঐতিহ্য তা- নষ্ট করে এ কুচক্রীরা দেশটাকে আফগানিস্তান কিংবা পাকিস্তান বানাতে চায়। বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র হিসেবে জন্ম নিয়েছে সেটাকে নষ্ট করতে সাম্প্রদায়িক উষ্কানির মাধ্যমে বিভেদ সৃষ্টি করতে চায়৷ তারা প্রতিনিয়ত ধর্মকে ব্যবহার করে একের পর এক সাম্প্রদায়িক হামলার মাধ্যমে বিভাজন সৃষ্টি করে সম্প্রীতি নষ্টের যে পায়তারা চালাচ্ছে তা কখনোই বাস্তবায়ন হবে না।

বক্তারা আরও বলেছেন- রাজশাহীর সাংবাদিক সমাজ সবসময়ই শান্তি ও সম্প্রীতির বন্ধন অটুট রাখতে কাজ করেছে। এ সময় সাম্প্রতিক সময়ে দেশের সকল সাম্প্রদায়িক সহিংসতার সঙ্গে জড়িতদের সর্বোচ্চ শান্তি হবে।

বাঙ্গালি জাতির অসাম্প্রদায়িকতার ইতিহাস সারা বিশ্বে রোল মডেল। এখানে হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টানসহ সকল ধর্ম বর্ণের মানুষ সম্প্রীতির বন্ধনে আবদ্ধ। কিন্তু মাঝে মাঝে কিছু কুচক্রী মহল এই সম্প্রীতি বিনষ্টের অপচেষ্টা চালায়। যেটা এদেশের প্রগতিশীল সমাজ, সাংবাদিক সমাজ ও সাধারণ মানুষ মেনে নেয়নি, আগামীতেও কখনো মেনে নেবে না।

 

 

ভুলুয়াবিডি/এএইচ

সংবাদটি শেয়ার করুন।