লক্ষ্মীপুরে করোনা উপসর্গে আরো তিন জনের মৃত্যু

প্রকাশিত: ৩:০৩ অপরাহ্ণ, জুন ১৬, ২০২০

লক্ষ্মীপুর সংবাদদাতা: লক্ষ্মীপুরের রায়পুর পৌরশহরের রড-সিমেন্ট ব্যবসায়ী এবং লক্ষ্মীপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সভাপতি মনিরুল ইসলাম মঙ্গলবার দুপুুরে জ্বর সর্দি নিয়ে হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা মৃত্যুবরণ করেছেন।

এছাড়া করোনা (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে ঢাকা একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যবরণ করে রায়পুর উপজেলার কেরোয়া ইউনিয়নের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আ স ম ফয়সাল। অপরদিকে একইদিন রামগঞ্জে আরো একজন কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। এনিয়ে ২৪ ঘন্টায় মারা যায় তিনজন।

সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল গফ্ফার তথ্যটি নিশ্চিত করেন। তিনি জানিয়েছেন, ধর্মীয় নিয়মনীতি মোতাবেক নিহতদের পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ এ পর্যন্ত ৯ জনের মৃত্যু রেকর্ড করেছেন। এ ছাড়াও নতুন করে ৯ জনের শরীরেও করোনা শনাক্ত হয়। এ নিয়ে জেলা মোট আক্রান্ত হয়েছে ৪৪৮ জন।

এদিকে জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট অঞ্জন চন্দ্র পাল জানান, গত কয়েকদিন থেকে করোনা প্রাণহানিসহ আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় মঙ্গলবার ভোর থেকে জেলা সদরসহ অপর পাঁচটি উপজেলা লকডাউন শুরু হয়েছে। এর মাঝে রেডজোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে-

রামগঞ্জ পৌর সভা, রায়পুর পৌর সভাসহ জেলা জেলা সদরের প্রাণকেন্দ্র লক্ষ্মীপুর পৌরসভার ৬, ৭, ১৫ এবং ৫নং ওয়ার্ডের আংশিক এবং সদর উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন দক্ষিণ হামছাদী, দালাল বাজার, পাবর্তী নগর, বাঙ্গাখাঁ, কুশাখালী, মান্দারী, ও চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়ন।

এ ছাড়াও রেডজোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে- রামগতি পৌরসভার চর আলেকজান্ডার, কমলনগর উপজেলার চর লরেঞ্চ, চর ফলকন, হাজির হাট ও তোরাবগঞ্জ রেড জোন ইউনিয়ন। রেডজোন হিসেবে ঘোষণা করে জেলা ও স্থানীয় প্রশাসন এবং জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।

এদিকে লক্ষ্মীপুর সদর ও রায়পুর উপজেলা তৃতীয়বার ও অপর ৩টি দ্বিতীয়বারের মতো লকডাউন চলছে। এ নিয়ে স্বাস্থ্য বিভাগ এবং স্থানীয় প্রশাসনের উদ্যোগে প্রচারনা চালানো হয়েছে।

ভুলুয়া বাংলাদেশ/এমএএইচ