লক্ষ্মীপুর জেলা সদরসহ ৫টি উপজেলায় ফের লকডাউন

প্রকাশিত: ১০:৫২ পূর্বাহ্ণ, জুন ১৬, ২০২০

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরে আবারো আজ মঙ্গলবার ভোর ৬টা থেকে ৫টি উজজেলায় লকডাউন শুরু হয়েছে।

এর মাঝে ‘রেড জোন’ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে, জেলা সদরের প্রাণকেন্দ্র লক্ষ্মীপুর পৌরসভার ৬, ৭, ১৫ এবং ৫ নং ওয়ার্ডের আংশিক এবং সদর উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন দক্ষিণ হামছাদী, দালাল বাজার, পাবর্তী নগর, বাঙ্গাখাঁ।

এ ছাড়া কুশাখালী, মান্দারী, ও চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়ন, রামগঞ্জ পৌরসভা, রায়পুর পৌরসভা, রামগতি পৌর সভার চর আলেকজান্ডার, কমলনগর উপজেলার চর লরে, চর ফলকন, হাজির হাট’সহ তোরাবগঞ্জ ইউনিয়ন।

গত কয়েকদিন থেকে করোনার (কোভিড-১৯) সংক্রমণ আশংকাজনক হার বেড়ে যাওয়ায় এসব এলাকাগুলোকে ‘রেড জোন’ হিসেবে ঘোষণা করে জেলা ও স্থানীয় প্রশাসন এবং জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।

এরমধ্যে সোমবার থেকে কমলনগর লকডাউন শুরু হয়।
আজ মঙ্গলবার ভোর থেকে জেলা সদরসহ অপর ৫টি উপজেলায় ফের লকডাউন শুরু হয়। এরমধ্যে লক্ষ্মীপুর সদর ও রায়পুর উপজেলা তৃতীয় বার এবং অপর ৩টি দ্বিতীয়বারের মতো লকডাউন চলছে।

এ নিয়ে স্বাস্থ্য বিভাগ ও স্থানীয় প্রশাসনের উদ্যোগে ব্যাপক প্রচারনা চালানো হয়েছে। এ ব্যাপারটি জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট অঞ্জন চন্দ্র পাল এবং সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল গফ্ফার এর সাথে কথা হলে তাঁরা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে গত ২৪ ঘন্টায় রামগঞ্জে আরো ১জন কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। এ ছাড়াও জ্বর সর্দি, শ্বাসকষ্টে করোনা উপসর্গে রায়পুর উপজেলার কেরোয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা মরহুম আবু তাহেরের এক মাত্র ছেলে সাবেক ছাত্রনেতা মো. সালেহ আহম্মদ ঢাকা মারা গেছেন।

পরে ধর্মীয় নিয়ম মেনে রাতে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ এ পর্যন্ত ৯জনের মৃত্যু রেকর্ড করেছে। এ ছাড়াও নতুন করে কোভিড -১৯ শনাক্ত হয়েছে আরো ৯জনের শরীরে। এ নিয়ে জেলা মোট আক্রান্ত হয়েছে ৪৪৮জন।

এদিকে গত ২৪ ঘন্টায় রামগঞ্জ উপজেলায় আরো একজন করোনা (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। এ ছাড়া করোনা আক্রান্ত হয়ে ঢাকা একটি হাসপাতালে চিকিৎসার পর মারা যায় রায়পুর উপজেলা কেরোয়া ইউনিয়ন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আ স ম ফয়সাল। ধর্মীয় নিয়ম মেনে রাতেই পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ এ পর্যন্ত ৯ জনের মৃত্যু রেকর্ড করেছে। এ ছাড়া নতুন কোভিড -১৯ শনাক্ত হয়েছে আরো ৯জনের শরীরে। এ নিয়ে জেলা মোট আক্রান্ত হয়েছে ৪৪৮জন।

 

ভুলুয়া বাংলাদেশ/এমএএইচ