ফাইল: ছবি

সেফটি ট্যাংকে ভাইকে ফেলে হত্যা

প্রকাশিত: ১:০৪ অপরাহ্ণ, জুন ২৭, ২০২০

রাজধানীর দক্ষিণ কাফরুলের বহুতল একটি ভবনের সেফটি ট্যাঙ্কে ফেলে মামাতো ভাইকে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। মধ্যরাতে রিফাত নামের ওই তরুণকে হত্যা করা হয়। শুক্রবার (২৬ জুন) সেফটি ট্যাংক থেকে নিহত রিফাতের মরদেহ উদ্ধার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

নিহত রিফাতের পরিবারের অভিযোগ, তাকে হত্যা ভবনের সেপটিক ট্যাংকে ফেলে দেয়া হয়েছে। তবে ভবন মালিকরা বলছেন, চুরি করতে এসে ভবনের উপর থেকে পড়ে আহত হলে কেয়ারটেকার তাকে সেপটিক ট্যাংকে ফেলে দেয়। সিসি ক্যামেরার ফুটেজে এমন চিত্র উঠে এসেছে।

জানা গেছে, বুধবার রাতে হঠাৎ করেই ভবনের উপর থেকে একজন নিচে পড়ে যান। সিসি ক্যামেরায় শব্দ ধারণ না হলেও আহত অবস্থায় বাঁচার যে আকুতি জানাচ্ছেন।

সাথে সাথেই ভবনের কেয়ারটেকার গ্যারেজের পেছন থেকে ছুটে আসেন, উঁকি দিয়ে দেখেন। যদিও এতো রাতে তার গ্যারেজের পেছনে থাকার কথা না, কেননা ভবনের মূল গেইটের সাথেই তার থাকার রুম। ৮ মিনিট পর আহত ছেলেটিকে টেনে ভবনের ভেতরে সেফটি ট্যাংকে ফেলে দেয় সে।

ওই ঘটনার পর বৃহস্পতিবার সকালে ভবন ফ্ল্যাট মালিকরা রাতে বিকট শব্দের বিষয়ে জানতে চান কেয়ারটেকারের কাছে। তখন কেয়ারটেকার রুবেল বলেন, একজন উপর থেকে পড়েছেন তাকে দু’জন তুলে নিয়ে গেছেন। দায়িত্বে অবহেলার কারণে মুচলেকা নিয়ে বিদায় দেয়া হয় তাকে।

কেয়ারটেকার আর উপর থেকে পড়া আহত ছেলেটি সম্পর্কে মামাতো ফুপাতো ভাই। বৃহস্পতিবার রিফাতের খোঁজে ভবনে আসে তার মা। পানির ট্যাংকিতে তার ছেলেকে মেরে ফেলে দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

এ ঘটনায় ভবনের কেয়ারটেকার রুবেলকে আটক করেছে ত্রিশাল থানা পুলিশ। পরে কেয়ারটেকারের স্বীকারোক্তির ভিত্তিতেই শুক্রবার সেপটিক ট্যাংক থেকে উদ্ধার করা হয় লাশ।

 

 

ভুলুয়াবিডি/এএইচ