সৌদি আরবে করোনা আক্রান্তের চেয় সুস্থ হচ্ছেন বেশি

প্রকাশিত: ৮:৪৭ অপরাহ্ণ, জুন ১২, ২০২০

আবদুল কাদের (সৌদিআরব) প্রতিনিধি: সৌদিআরবে গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় (কোভিড-১৯) আক্রান্তের চেছে সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরে গেছেন এক হাজার ১০ জন।

শুক্রবার (১২ জুন) তিন হাজার ৯’শ ২১জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। অন্যদিকে আক্রান্তদের মধ্যে মৃত্যুবরণ করে ৩৬ জন। সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরে গেছেন ১ হাজার ১০ জন।

দেশটিতে মোট করোনা রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে মোট ১ লাখ১৯ হাজার ৪২ জনে। মৃত্যুবরণ করেন গত ২৪ ঘন্টায়
৩৬ জন। মোট মৃত্যু’র সংখ্যা দাঁড়ায় ৮’শ ৯৩ জন।

এদিকে, সৌদিআরবে করোনায় আক্রান্তের চেয়ে সুস্থ হওয়ার খবর সন্তোষজনক হলেও সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণাল বলছে, ফের পরিস্থিতি খারাপের দিকে যাচ্ছে। করোনা আক্রান্ত রোগী বিগত দিনের চেয়ে আজ সর্বোচ্চ রেকর্ড সংখ্যক। তাছাড়া

এখন পর্যন্ত চিকিৎসাধীন রয়েছে ৩৮,০২০জন।সুত্রঃ সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এখনও করোনার উপসর্গে আক্রান্ত ১৩ হাজারের চেয়েও ঊর্ধ্বে।

এদিকে মহামারি করোনা আক্রান্তে মৃত্যুবরণ করেন ২’শ ৭৫ জন প্রবাসী বাংলাদেশি। কিন্তু বলা হচ্ছে, মৃত্যুবরণ করা প্রবাসী বাংলাদেশিদের লাশ দেশে পাঠানো হবেনা। তাদের মরদেহ সৌদিতে দাফন করা হচ্ছে এবং হবে।

জানা গেছে, সৌদিতে সামাজিক দূরত্ব ও জনসমাগমের নিয়ম লঙ্ঘন করলে মোটা অংকের জরিমানা গুনতে হবে জানিয়ে গত ১ জুন ঘোষণা দেয় দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণাল। সৌদি প্রেস এজেন্সি সৌদি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে এই তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য সৌদিতে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। অন্যথায় গুনতে হবে মোটা অংকের সৌদি রিয়েল (১ হাজার রিয়াল)।

সেই সাথে বিদেশী নাগরিক হলে শাস্তি প্রয়োগ শেষে সৌদি থেকে বিতারণ ও পুনরায় সৌদিতে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞার শাস্তি প্রয়োগের নির্দেশনা জারী করা হয়েছে।

ইচ্ছাকৃতভাবে স্বাস্থ্যবিধি ও করোনা প্রতিরোধে নির্দেশিত স্বাস্থ্যবিধি না মানলে, মেডিকেল মাস্ক বা কাপড়ের মাস্ক না পড়লে (যে মাস্ক নাক-মুখ ঢেকে রাখে এমন মাস্ক ব্যবহার করতে হবে), সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখলে।

পাশাপাশি সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে প্রবেশের সময় তাপমাত্রা পরিমাপে বাধা দিলে, শরীরে ৩৮ টেম্পারেচার থাকাবস্থায় বিশেষ স্বাস্থ্যবিধি না মানলে শাস্তির সম্মুখীন হতে হবে সবাইকে।

এদিকে করোনা পরিস্থিতিতে সৌদি আরব থেকে প্রবাসী বাংলাদেশি যারা দেশে ফিরে যেতে ইচ্ছুক, তাদের জন্য একটি ওয়ান ওয়ে ফ্লাইটের ব্যবস্থা করে বাংলাদেশ বিমান। এই বিশেষ ফ্লাইটের ভাড়া ঘোষণা করেছে বিমান কর্তৃপক্ষ।

তথ্যমতে জানা গেছে, করোনা (কোভিড-১৯) প্রাদুর্ভাবের কারণে ইন্দোনেশিয়ার পাশাপাশি মালেশিয়া তাদের দেশের নাগরিকদের এ বছর হজ্বযাত্রা বাতিল করেছে।

 

ভুলুয়া বাংলাদেশ/এমএএইচ